ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি

ভোলায় গ্যাসচালিত ভাড়া বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ ২ বছর বাড়লো

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২৫ ঘণ্টা, অক্টোবর ৮, ২০২০
ভোলায় গ্যাসচালিত ভাড়া বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ ২ বছর বাড়লো

ঢাকা: ভোলায় অবস্থিত ৩৪ দশমিক ৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ভেঞ্চার এনার্জি রিসোর্সেস লিমিটেডের গ্যাসচালিত ভাড়া বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ দুই বছর বাড়ানোর প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। দুই বছরের জন্য এ বিদ্যুৎকেন্দ্রে থেকে বিদ্যুৎ কেনায় সরকারে ব্যয় ধরা হয়েছে হবে ১৪৭ কোটি ৯৫ লাখ ২৮ হাজার টাকা।

 

বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোম্বার) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল দেশের বাইরে থাকায় কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ভার্চ্যুয়াল সভায় এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।  

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. আবু সালেহ মোস্তফা কামাল ভার্চ্যুয়ালি সাংবাদিকদের জানান, সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ২৫তম সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় মোট ৭টি প্রস্তাব উপস্থাপিত। সবগুলোই অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে বিদ্যুৎ বিভাগের তিনটি, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের একটি, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের একটি এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের দু’টি প্রস্তাব।  

অতিরিক্ত সচিব ড. আবু সালেহ মোস্তফা কামাল জানান, বর্ধিত মেয়াদে ২০১৯ সালের ১২ জুলাই থেকে ২০২০ সালের ২১ জুন পর্যন্ত ট্যারিফ হার প্রস্তাব করা হয়েছে প্রতি কিলোওয়াট/ঘণ্টা ৩ টাকা ৭ পয়সা (৩.৮৪ সেন্ট) এবং ২০২০ সালের ২২ জুন থেকে ২০২১ সালের ১১ জুলাই পর্যন্ত প্রতি কিলোওয়াট/ঘণ্টা বিদ্যুতের ট্যারিফ হার প্রায় ২ টাকা ৮০ পয়সা (৩.৪৯৯ সেন্ট) প্রস্তাব করা হয়েছে। ডলারপ্রতি ৮০ টাকা ধরে এ হিসাব করা হয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের ‘সৌর বিদ্যুৎচালিত পাম্পের মাধ্যমে কৃষি সেচ’ শীর্ষক প্রকল্পের প্যাকেজ নম্বর-SPIP-W-1-এর বিপরীতে টার্ন-কি পদ্ধতিতে সৌরবিদ্যুৎচালিত সেচ পাম্প স্থাপনের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে। প্রকল্পের কাজটি যৌথভাবে পেয়েছে বাংলা সোলার, জেভি অব পাওয়ার ইউটিলিটি বাংলাদেশ লিমিটেড এবং জার্মানির রাচ সোলার। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৭ কোটি ৩৪ লাখ ৪৯ হাজার ৪৯৯ টাকা।

একই প্রকল্পের আওতায় অপর একটি প্রস্তাবে প্যাকেজ নম্বর-SPIP-W-2-এর বিপরীতে টার্ন-কি পদ্ধতিতে সৌরবিদ্যুৎচালিত সেচ পাম্প স্থাপনের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

প্রকল্পের কাজটি যৌথভাবে পেয়েছে বাংলা সোলার, জেভি অব পাওয়ার ইউটিলিটি বাংলাদেশ লিমিটেড এবং জার্মানির রাচ সোলার। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৮ কোটি ৭৫ লাখ ৪৯ হাজার ৫৩৭ টাকা।
 
এর আগে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি) ভিত্তিতে বরিশাল ‘ভোলা রোডের কালভদ্র এবং তেঁতুলিয়া নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণ’ প্রকল্পের নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে সরকার। প্রকল্পটি বাস্তবায়ণ করবে সেতু বিভাগ।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫০ ঘণ্টা, অক্টোবর ০৮, ২০২০ 
জিসিজি/এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa