ঢাকা, বুধবার, ১২ কার্তিক ১৪২৭, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

শিক্ষা

বিশ্ববিদ্যালয় খোলা সমীচীন হবে না, হল খোলা আত্মঘাতী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০২৩ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৬, ২০২০
বিশ্ববিদ্যালয় খোলা সমীচীন হবে না, হল খোলা আত্মঘাতী ভার্চ্যুয়াল সভায় উপাচার্যরা।

ঢাকা: বিশ্বের অনেক দেশে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার উদাহরণ টেনে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো না খোলার পক্ষে মত দিয়েছেন উপাচার্যরা।

আর এ পরিস্থিতিতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম বেগবান করার আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)।



পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাস পরিচালনা নিয়ে উপাচার্যদের সঙ্গে বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) এক মতবিনিময় সভায় এ কথা জানানো হয়।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনা করে এখনই বিশ্ববিদ্যালয় খোলা মোটেও সমীচীন হবে না বলে মনে করেন উপাচার্যরা।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের মতে, হল খোলা আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত হবে। বিশ্বের অনেক বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার উদাহরণ তারা সভায় তুলে ধরেন।

সভায় দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন শিক্ষাকার্যক্রম বেগবান করা এবং শিক্ষার্থীদের পাঠক্রমে বেশি মাত্রায় সম্পৃক্ত করার জন্য উপাচার্যদেরকে আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন। এছাড়া শিক্ষার্থীদের বিনাসুদে স্মার্টফোন ও বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ দেওয়ার ইউজিসির উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়।

অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমের বর্তমান অবস্থা এবং এ ব্যবস্থাকে কিভাবে আরো কার্যকর করা যায় সেলক্ষ্যে ভার্চ্যুয়াল প্ল্যাটফর্মে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. শহীদুল্লাহ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, রাজশাহী বিশ্বদ্যিালয়ের উপাচার্য ড. এম আব্দুস সোবহান, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. লুৎফুল হাসান, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. সত্য প্রসাদ মজুমদার, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. শিরীন আক্তার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. ফারজানা ইসলাম, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. হারুন-অর-রশিদসহ ৪৬ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বক্তব্য রাখেন।

ইউজিসি সদস্য প্রফেসর ড. দিল আফরোজা বেগমের সঞ্চালনায় সভায় কমিশনের সদস্য ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন, ড. মুহাম্মদ আলমগীর, ড. বিশ্বজিৎ চন্দ, ড. মো. আবু তাহের ছাড়াও কমিশনের সচিব (অ.দ.) ড. ফেরদৌস জামান, জনসংযোগ ও তথ্য অধিকার বিভাগের পরিচালক ড. শামসুল আরেফিন ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ম্যানেজমেন্ট বিভাগের পরিচালক মো. কামাল হোসেন সভায় উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ০০১৭ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৬, ২০২০
এমআইএইচ/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa