ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ আশ্বিন ১৪২৭, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫ সফর ১৪৪২

উপন্যাস

‘বিকেল শেষের আলো’-‘প্রাণপ্রপাত’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

রোববার (৮ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর জাতীয় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে এ বই দুইটির মোড়ক উন্মোচন করা হয়। মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের

শিল্পকলায় সৈয়দ হক স্মরণে ‘হ্যামলেট’ মঞ্চায়ন

নাট্যকাহিনির সূচনা হয় ডেকমার্কের রাজা হ্যামলেটের মৃত্যু ঘটনাকে কেন্দ্র করে, যিনি ছিলেন তরুণ যুবরাজ হ্যামলেটের বাবা। রাজার

দুটি রাজনৈতিক উপন্যাসের নির্মাণ

এই ইতিহাস দূরবর্তী কালের হলে তার মূল্যায়ন অপেক্ষাকৃত সহজতর, আবার উল্টো দিক থেকে দেখলে এই দূরত্বের জন্য অনেক সময়ই ঐতিহাসিক অনেক

নীল উড়াল: শেষ পর্ব

৪১. ছোটখালার বাসার উঠানের কোণে করমচা গাছের নীচে আমি আর অন্তরা মুখোমুখি দাঁড়িয়ে। চারপাশে থোকা থোকা অন্ধকার। আমরা কেউ কারও মুখ দেখতে

নীল উড়াল: পর্ব চল্লিশ

৪০. ভালোবাসা টেনে আনে, ভালোবাসা দূরে সরিয়ে দেয়। মার্গারেটের কাছ থেকে এক ধরনের ভালোবাসা বুকে নিয়ে আমি চলে আসি আরেক ভালোবাসা

নীল উড়াল: পর্ব ঊনচল্লিশ

৩৯. একটি গাড়ির কাছে কত অসহায় একটি কবিতা। বোঝা যায় সন্ধ্যার ট্রাফিক সিগন্যালে দাঁড়ালে। প্রতি মিনিটে সেখানে একটি করে গাড়ি সুগন্ধি

নীল উড়াল: পর্ব আটত্রিশ

** নীল উড়াল: সপ্তত্রিংশ পর্ব ৩৮. তানিয়া মেয়েটি অসাধারণ দক্ষতা দেখালো বটে। তারুণ্যের কর্মস্পৃহায় সে কতটা প্রাণচঞ্চল, বাইরে থেকে টের

নীল উড়াল: সপ্তত্রিংশ পর্ব

৩৭. মার্গারেট আমাকে দেখে উত্তেজনা ও আনন্দে উল্লসিত হয়ে চেয়ার ছেড়ে লাফিয়ে কাছে এলো। কিছু বলার বা শোনার আগে সে আমাকে গভীর আবেগে জড়িয়ে

নীল উড়াল: ষড়ত্রিংশ পর্ব

৩৬. জেগেই দেখি অনিন্দ্য আলোর ভোর। শামুকের পিঠের মতো পুরোটা দ্বীপের বালুচর চকচক করছে অলৌকিক সূর্যালোকে। চারপাশের সৈকতে আছড়ে পড়ছে

নীল উড়াল: পঞ্চত্রিংশ পর্ব

৩৫. সাইফুল ভালো ব্যবস্থাই করেছে। ট্রেনে জানালার কাছে সিট পেয়েছি। বেচারা সারাটা দিন বড় খেটেছে আমার জন্য। এই বাজারে কে কার জন্য করে!

নীল উড়াল: চতুর্ত্রিংশ পর্ব

৩৪. ঝড়ের বেগ পেয়েছে সাইফুলের ‘উড়াল যাত্রা’। সে চাপা আতঙ্কে বললো: -স্যার, এখন কই যামু? আমি কোনো উত্তর দিতে পারি না। মার্গারেটের

নীল উড়াল: ত্রাত্রিংশ পর্ব

৩৩. বিপদে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আস্থার কাউকে মনে পড়ে। পলাতক জীবনের শুরুতেই অজানার পথে নেমে আমার ‘উড়াল যাত্রা’র কথা মনে এলো। সাইফুল

নীল উড়াল: একত্রিংশ পর্ব

৩১. এনামুল সিডিটা শক্ত ভাবে প্যাকেট করলো। একটি ছোট্ট চিরকুট লিখে প্যাকেটের মধ্যে ঢুকালো। এনামুলের মুখ এখন আরও ম্লান। মনে হচ্ছে কে

নীল উড়াল: ত্রিংশ পর্ব

৩০. অভিজাত এলাকায় খাসা অফিস সাজিয়েছে এনামুল। পয়সা থাকলে যা হয়। আজকাল অফিসের জৌলুস দিয়ে অর্থ, বিত্ত, শক্তি, প্রতিপত্তি প্রদর্শন করা

নীল উড়াল: ঊনত্রিংশ পর্ব

২৯. মার্গারেট সফর বাতিল করে ঢাকাতেই রয়ে গেছে। জরুরি প্রয়োজনের কথা বলে ছুটি নিয়েছে সে। আমাকে নিয়ে কয়েক দিন হাসপাতালে টানাটানি করায়

নীল উড়াল: অষ্টবিংশ পর্ব

২৮. বাংলাদেশে সেমিনার মানে এক এলাহি ব্যাপার। যত না কাজ, তার চেয়ে হৈ-হাঙ্গামা বেশি। লক্ষ্যের চেয়ে উপলক্ষ্যই এখানে প্রধান। সেমিনারের

নীল উড়াল: সপ্তবিংশ পর্ব

২৭. তানিয়া নামে এক মেয়ে ফোন করেছে। নারী কণ্ঠ শুনে আমি সজাগ হয়ে গেলাম। মলিদের তীক্ত অভিজ্ঞতা আমাকে এখনও ধাওয়া করছে। এই মেয়ে মলিদের

নীল উড়াল: ষড়বিংশ পর্ব

২৬. যথেষ্ট দৌড়-ঝাঁপ হয়েছে। শরীরের উপর দিয়েও ধকল কম যায় নি। তথ্য-উপাত্ত প্রচুর পরিমাণেই আমার নোট খাতায় জমা পড়েছে। ফ্ল্যাটে বসে

নীল উড়াল: পঞ্চবিংশ পর্ব

২৫. শ্রাবণের মাঝামাঝি। স্থলবন্দর বেনাপোল থেকে দক্ষিণমুখো কাঁচা রাস্তা ধরে আমরা হাঁটছি; আমি, সঙ্গে এনামুল। দৌলতপুর-পুটখালী গ্রামের

নীল উড়াল: চতুর্বিংশ পর্ব

২৪. মহাবিরক্ত কণ্ঠে ফোন করেছে এনামুল: -কি হয়েছে তোর? বলেছি না আমাকে না বলে কোথাও যাবি না! আমি চুপ করে রইলাম। জানি, আমার গতিবিধি

এই বিভাগের সর্বাধিক জনপ্রিয়

Alexa